নিশ কি? নিশ কিভাবে সিলেক্ট করবেন? ৫টি অত্যন্ত সহজ ধাপ! হয়ে যান Successful Blogger 2022

নিশ
নিশ সিলেকশন

আমরা বিভিন্ন ব্লগ/ইউটিউব বা ফেইসবুক পোষ্টে যখন নিশ শব্দটি খুঁজে পাই তখন আমরা নিশ কি বা নিশ সিলেক্ট কিভাবে করতে হয় তা নিয়ে বুঝে উঠতে পারিনা ঠিকমতো। আজকের আর্টিকেলটিতে শেয়ার করবো নিশ কি এবং নিশ কিভাবে সিলেক্ট করতে হয় সেটা নিয়ে।

নিশ কি?

ধরুণ আপনি ইউটিউবিং শুরু করবেন। তাহলে আপনি অবশ্যই যেকোনো একটি বিষয়ের উপর বেইস করে কন্টেন্ট বানাবেন। এমনটা নয় কিছুক্ষণ আপনি বাংলাতে ভিডিও করবেন কিছুক্ষণ হিন্দি, ইংরেজী অথবা অন্য কোনো ভাষায়! অবশ্যই যেকোনো একটি টপিক নিয়ে ভিডিও করবেন। অথবা এইভাবে আরো সহজভাবে বললে ধরুন, আপনি একটি ওয়েবসাইট বানাবেন। আপনি প্ল্যান করেছেন ওয়েবসাইটটিতে আপনি পড়ালেখা বিষয়ক আর্টিকেল দিবেন। এই যে এখানে পড়ালেখাটাই হচ্ছে নিশ। অর্থাৎ, টপিক বা বিষয়ই হচ্ছে নিশ।

নিশ সিলেক্ট কিভাবে করবেন?

আপনি যদি সিদ্ধান্ত নিয়েই ফেলেন যে ব্লগিং করে আয় করবেন, তাহলে আপনার নিশ সিলেক্ট করতে হবে। এই মূহুর্তে আলোচনা করবো অত্যন্ত সহজ ৫টি ধাপে আপনি আপনার টপিক সিলেক্ট করতে পারবেন।

ধাপ-১ : আপনার স্কিল এবং ইন্টারেস্ট খুজুন

আপনি কোন ফিল্ডে এ ইন্টারেস্টেড তা নিজে নিজেকে যাচাই করুন। এটি খুব গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এরপর আপনার যাচাই করতে হবে যে বিষয়েস আপনি ইন্টারেস্টেড সে টপিক নিয়ে আপনার পূর্ব কোনো দক্ষতা আছে কিনা। পূর্ব দক্ষতা থাকা অবশ্যই জরুরী। উদাহরণস্বরুপ আপনি ঠিক করলেন যে আপনি ইংরেজী ভাষায় প্রোডাক্ট বা যেকোনো কিছু রিভিউ রিলেটেড ওয়েবসাইট বিল্ড আপ করবেন। এখানে আপনার অবশ্যই দেখতে হবে যে আপনি রিভিউ আর্টিকেল সেভাবে লিখতে পারবেন কিনা যেভাবে মার্কেট ভ্যালু পাওয়া যায়। তার পাশাপাশি এটাও যাচাই করতে হবে আপনি ইংরেজীতে দক্ষ কিনা। অন্যথায় রিভিউ লিখতে পারবেন না। সুতরাং এই ধাপে বোঝা গেলো আপনার আগ্রহ এবং প্যাশন খুজে বের করুন যেটা নিয়ে আপনি আপনার অবসরে সময়টি কাজে লাগাতে পারেন। এবং তা তে দক্ষ কিনা তাও যাচাই করবেন।

আরো পড়ুনঃ এফিলিয়েট মার্কেটিং কি? এফিলিয়েট মার্কেটিং এর যত খুটিনাটি

আরো পড়ুনঃ গ্রাফিক্স ডিজাইন কি? গ্রাফিক্স ডিজাইন কিভাবে শিখবেন?

ধাপ-২ : নিশের সার্চ ভলিউম মার্কেটভ্যালু দেখুন

আপনি ইতিমধ্যেই সিদ্ধান্ত যদি নিয়ে থাকেন নিশ নিয়ে তাহলে এই ধাপে অবশ্যই আপনার যাচাই করতে হবে যে আপনার সিলেক্ট করা টপিকের এর মার্কেটে চাহিদা কেমন। এখানে মার্কেট চাহিদা বলতে বুঝায় যে আপনার সিলেক্টেড ফিল্ড ভিজিটররা কতটুকু সার্চ করছে এবং কতটুকু উপকৃত হচ্ছে তারা। যদি দেখেন যে ভিজিটরর আপনার সিলেক্টেড ফিল্ডের উপর বেশি ইন্টারেস্টেড তাহলে তা নিয়ে কাজ করতে পারেন অন্যথায় বিকল্প টপিক সিলেক্ট করুন। সার্চ ভলিউম যদি ৫০০০ এর কম হয় তবে আপনার জন্য আমরা সাজেস্ট করবো বিকল্প টপিক্স সিলেক্ট করার। মার্কেটভ্যালু চেক করার বেশকিছু অনলাইন টুলস রয়েছে।

আরো পড়ুনঃ আর্টিকেল লিখার মাধ্যমে খুব দ্রুত ইনকাম করুন এবং সম্পূর্ণ গাইডলাইন

ধাপ-৩ : কিওয়ার্ড রিসার্স করুন

নিশ সিলেক্ট করার সময় কিওয়ার্ড অত্যন্ত গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে কেননা এটি আপনার ওয়েবসাইট র‍্যাংক করায়। আপনি অযথা ওয়েবসাইটে আর্টিকেল লিখলেন দেখা গেলো মার্কেটভ্যালু যাচাই করলেন না। অথবা মার্কেটে আপনার সিলেক্টেড নিশের অত্যন্ত চাহিদা কিন্তু দেখা গেলো আপনার ওয়েবসাইটের আর্টিকেলে কোনো ভিজিটর্স নেই! এর একমাত্র কারণ আপনার আর্টিকেল গুলো গুগলে র‍্যাংক করেনি। গুগলে যদি র‍্যাংক করে তাহলে কেউ আপনার আর্টিকেলের বিষয় বা সংক্ষিপ্ত কয়েকটি শব্দ লিখে সার্চ করলে প্রথম বা দ্বিতীয় পেইজের মধ্যে ফলাফলে শো করতো আপনার আর্টিকেলটি। যেহেতু শো করেনি ফলে কোনো ভিজিটর্সই পেলেন না গুগল থেকে আপনি। সুতরাং বুঝতেই পারছেন কিওয়ার্ড রিসার্স কত বড় অংশ একটা ওয়েবসাইটকে দাড় করাতে। কীওয়ার্ড রিসার্স করার অনেক টুলস আছে অনলাইনে। এবং আপনার আর্টিকেলের মধ্যে কিছু গ্রুত্বপূর্ণ শব্দ খুজে নিন আপনি যা মানুষ সচরাচর গুগলে সার্চ করবে। তার মধ্যেই আসল কীওয়ার্ড খুজে পেলে তা নিয়ে রিসার্স করুন। এবং আর্টিকেলের মধ্যে সে কীওয়ার্ড গুলো ইউজ করুন রিকমেন্ডেড ডেনসিটি অনুযায়ী। যদি সঠিকভাবে সফল হোন তবে ভিজিটর্স আপনার কীওয়ার্ড সার্চ ইঞ্জিনে সার্চ করলে অবশ্যই খুজে পাবে সে কীওয়ার্ডের আর্টিকেলটি।

নিশ
নিশ সিলেকশন

ধাপ-৪ : কম্পিটিটর কীওয়ার্ড রিভিউ করুন

সার্চ ইঞ্জিনে আপনার কীওয়ার্ডের আর্টিকেলটি সার্চ করার পর দেখা গেলো আপনার আর্টিকেলটি শো করছে তবে অনেক নিছে। আর্টিকেলটির পূর্বে অনেক সাইটের আর্টিকেল শো করছে। যার কারণে আপনার আর্টিকেলের ইম্প্রেশন কমে যাচ্ছে। কারণ আমরা সচরাচর গুগলে কোনো কিছু সার্চ করে প্রথম ৩-৪ টি আর্টিকেল ক্লিক করি। এর বেশি নিচের আর্টিকেল আর চেক করিনা। ফলে আপনি হারাতে পারেন আপনার কিছু ভিজিটর্স। সুতরাং এ থেকে মুক্তি পাওয়ার রিকমেন্ডেড উপায় হচ্ছে আপনার কম্পিটিটর্সদের আর্টিকেল ভালোকরে চেক করুন। আপনার কম্পিটিটর্স হচ্ছে গুগলে কীওয়ার্ড সার্চ করার পর যাদের আর্টিকেলগুলো আপনার আর্টিকেলের উপরে শো করছে তারা। সুতরাং এটি থেকে মুক্তি পাওয়ার রিকমেন্ডেড উপায় হচ্ছে কম্পিটিটর্সদের আর্টিকেলগুলো ডিটেইলস পড়ুন এবং দেখুন সার্চ করা কীওয়ার্ড গুলো আর্টিকেলটিতে কতবার ব্যবহার করা হয়েছে, কোথায় কোথায় ব্যবহার করা হয়েছে, আর্টিকেলটি কত ওয়ার্ডের, হেডিং ট্যাগ ইত্যাদি সব ডিটেইলস দেখুন । এরপর আপনার আর্টিকেলে সেভাবে মেইনটেইন করুন, দেখবেন কীওয়ার্ড র‍্যাংক করেছে।

আশা করি এই আর্টিকেলটি পড়ে কিছুটা ধারণা লাভ করেছেন নিশ কি এবং নিশ কিভাবে সিলেক্ট করতে হয় তা নিয়ে।এছাড়াও আরো পড়তে গুগল সার্চে দেখতে পারেন। নিশ সিলেকশন নিয়ে আর্টিকেলটি যদি আপনার ভালো লাগে তাহলে শেয়ার করবেন।

error: দুঃখিত! কন্টেন্ট কপি করা যাবেনা! প্রয়োজনে শেয়ার অপশন থেকে শেয়ার করুন