গ্রাফিক্স ডিজাইন কি? গ্রাফিক্স ডিজাইন কিভাবে শিখবেন?

গ্রাফিক্স ডিজাইন কি
গ্রাফিক্স ডিজাইন

ফ্রিল্যান্সিং দুনিয়ার অনেক বড় একটা সেক্টর গ্রাফিক্স ডিজাইন। কিন্তু এই গ্রাফিক্স ডিজাইন কি, কিভাবে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে হয়, গ্রাফিক্স ডিজাইন কোর্স ইত্যাদি নিয়ে অনেক প্রশ্ন থেকে যায়। চলুন আজ আপনাদের সাথে শেয়ার করবো গ্রাফিক্স ডিজাইনের আদ্যোপন্ত

গ্রাফিক্স ডিজাইন

বর্তমানে প্রতিযোগী ডিজিটাল মার্কেটিং এর এই যুগে গ্রাফিক্স ডিজাইন ব্যাতিত পুরো মার্কেটিং ডিপার্টমেন্টই অচল। এর কারনও বিদ্যমান চোখের সামনেই। ডিজিটাল মার্কেটিং এর জন্য যা যা দরকার একটা কোম্পানির, তার বেশির ভাগই বানায় গ্রাফিক্স ডিজাইনাররা।

তবে এই ব্যাপারে আমরা শুনলেই বুঝি ডিজাইনিং যাবতীয় কিছু। যেমন: লোগো ডিজাইন, ফ্লায়ার ডিজাইন, ফটো ডিজাইন, কার্ড ডিজাইন, ফ্লাইয়ার ডিজাইন, ইন্টারফেস ডিজাইন, ব্যানার ডিজাইন, পোষ্টার ডিজাইন, এনিমেশন ইত্যাদি। কিন্তু বাস্তবে গ্রাফিক্স ডিজাইনের পরিধি অনেক ব্যাপক। গ্রাফিক্স ডিজাইন হলো একটি মননশীল প্রক্রিয়া, যে প্রক্রিয়ায় একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার বিভিন্ন ভিজুয়্যাল এলিমেন্ট (লাইন, টেক্সচার, কালার,  ইত্যাদি) দ্বারা তার চিন্তা ও মননশীলতার বহিপ্রকাশ ঘটায় অথবা সোসাইটিকে অর্থবহ মেসেজ দিয়ে থাকে অথবা বিভিন্ন সমস্যার সমাধান তুলে ধরে। আর এ জন্যই গ্রাফিক্স ডিজাইনকে বলা হয় “আর্ট অব কমিউনিকেশন”।

আরো পড়ুনঃ এসইও কি? এসইও কিভাবে শিখবো? বিস্তারিত

অন্যদিকে গ্রাফিক্স ডিজাইনের কথা বললে যে দুটি সফটওয়্যার এর কথা না বললেই নয় তা হলো এডবি ফটোশপ এবং এডবি ইলাস্ট্রেটর। গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েবসাইট ডিজাইন, প্রেজেন্টেশন টেমপ্লেট, ফটোগ্রাফি রিটাচ, ফটো ম্যানিপুলেশান, থ্রিডি অ্যানিমেশন, মোশন গ্রাফিক্স, মাল্ডিমিডিয়া প্রোডাকশন ইত্যাদি সকল ক্ষেত্রে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে এই দুইটি সফটওয়্যার ব্যবহার করা হয়। ব্যানার, পোষ্টার, বিলবোর্ড, সোশ্যাল মিডিয়া কভার ফটো, টেলিভিশন কমার্শিয়াল, ইত্যাদির সবকিছুই গ্রাফিক্স ডিজাইন এর অন্তর্ভুক্ত।

তাই বর্তমানে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর গুরুত্ব ক্রমশ বেড়েই চলেছে। আপনি যদি সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন যে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখবেন, তবে বলা যায় অবশ্যই এটি আপনার জীবনে নেওয়া অন্যতম একটা ফলপ্রসূ সিদ্ধান্ত হতে পারে।

আরো পড়ুনঃ এফিলিয়েট মার্কেটিং কি? এফিলিয়েট মার্কেটিং এর যত খুটিনাটি

আজ আপনাদের সাথে গ্রাফিক্স ডিজাইন কি ও গ্রাফিক্স ডিজাইন কেন শিখবেন, কিভাবে শিখবেন, গ্রাফিক্স ডিজাইন এর চাহিদা, ক্যারিয়ার হিসেবে গ্রাফিক্স ডিজাইন ইত্যাদি তুলে ধরার চেষ্টা করবো। আশা করি আপনার সকল প্রশ্নের উত্তর এই আর্টিকেলটি থেকেই পেয়ে যাবেন।

গ্রাফিক্স ডিজাইন কি?

গ্রাফিক্স ডিজাইন হচ্ছে কোনো একটি ম্যাসেজ বা তথ্যকে সৃজনশীলতা দিয়ে রঙ, রেখা ও বিভিন্ন সেপের মাধ্যমে মানুষের সামনে তুলে ধরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এখন এই তথ্য বা ম্যাসেজগুলো হয় মার্কেটিং সম্পর্কিত।

মার্কেটিং বাদেও আরো বিভিন্ন ধরণের সেক্টর রয়েছে গ্রাফিক্স ডিজাইনের আওতায়। তবে তার মধ্যে গার্মেন্টস সেক্টর অন্যতম। গার্মেন্টস খাতের যেকোনো পণ্য তৈরি করার আগে এর ডিজাইন করতে হয়। আর আপনি জেনে থাকবেন যে বাংলাদেশের গার্মেন্টস সেক্টর পৃথিবী বিখ্যাত। তাই এ খাতে যোগ দিলে সেটি আপনার ক্যারিয়ারের জন্য খুবই উপকারী হবে। আপনি বিভিন্ন বড় বড় কোম্পানিতে কাজের সুযোগ পাবেন যদি দক্ষ ডিজাইনার হতে পারেন। পাশাপাশি আপনি ফ্রিলান্সিং করেও অনেক অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

ক্যারিয়ার হিসেবে গ্রাফিক্স ডিজাইন কেন এতো জনপ্রিয়?

ক্যারিয়ার হিসেবে এই পেশা কেন এতো জনপ্রিয় তা অনেক মানুষেরই কৌতূহল। আসলে সত্যি কথা বলতে গেলে এর অসংখ্য কারন রয়েছে। যে কেউই চাইবে এমন একটি পেশা নির্ধারণ করার জন্য যার ভবিষ্যৎ অনেক উজ্জ্বল। চলুন দেখে আসি গ্রাফিক্স ডিজাইন ক্যারিয়ার হিসাবে কেন এতো জনপ্রিয়!

আরো পড়ুন: এসইও কি? এসইও কিভাবে শিখবো? Easy way 2022

সৃজনশীল পেশা

এটি পরিপূর্ণরুপে একটি সৃজনশীল পেশা। এই পেশায় আপনার সৃজনশীলতাই আপনার মূল হাতিয়ার, পুঁথিগত বিদ্যা এখানে তেমন একটা কাজে আসে না। আপনি যদি সৃজনশীল না হন, তাহলে আপনি এই সেক্টরে উন্নতি করতে পারবেন না।

আপনি হয়ত অনেক ডিজাইন অনলাইনে পাবেন, কিন্তু নিজেকে যদি সেই ফ্রি ডিজাইনগুলোর মধ্যেই আটকে রাখেন তাহলে আপনার জন্যে এই পেশা নয়। আপনাকে নিজেকে শেখার প্রতি আগ্রহী করে তুলতে হবে।

আপনি যত বেশি সৃজনশীলতার সাথে আপনার আইডিয়া ফুটিয়ে তুলতে পারবেন ততই আপনার কাজের কোয়ালিটি উন্নত হবে। আপনি যদি আপনার সৃজনশীলতাকে স্বাধীনভাবে ফুটিয়ে তুলতে ভালবাসেন তাহলে গ্রাফিক্স ডিজাইন পেশায় আপনি উন্নতি করতে পারবেন।

উচ্চতর চাহিদা

বর্তমান বিশ্বে ভিজুয়াল কনটেন্ট সব থেকে বেশি পপুলার হচ্ছে। সাথে সাথে Graphics Design অনেক বেশি চাহিদাপূর্ণ হয়ে উঠছে। সোশ্যাল মিডিয়া থেকে শুরু করে ওয়েবসাইটের কাজের জন্যে এখন এই সেক্টর অপরিহার্য হয়ে উঠেছে। ডিজাইনিং প্রয়োজনীয়তা দিন দিন বেড়ে চলেছে, কারন এই ইন্ডাস্ট্রিতে পেশাগত মানুষ হাতে গোনা। আপনি যদি নিজেকে এই কাজে পারদর্শী করে তুলতে পারেন তাহলে বিশ্বের অনেক বড় বড় কোম্পানিতে চাকরি পেতে পারেন। যেখানে আপনার বেতনের পরিমাণ তুলনামূলক অনেক বেশি।

বাড়িতে বসে কাজের সুযোগ

এই ইনড্রাস্ট্রিতে কাজ করার সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে, আপনি যেকোন জায়গায় বসে এই কাজ করতে পারেন। আপনাকে কোন অফিসে বসে কাজ করতে হবে না। আপনি চাইলে ঘরে বসে কাজ করতে পারেন।

শুধু মাত্র একটি ল্যাপটপ ও প্রয়োজনীয় সফটওয়্যার ইনস্টল করেই আপনি কাজ শুরু করতে পারবেন যেকোন জায়াগায় বসে। এই পেশাটা সম্পূর্ণরূপে কাজের পারদর্শিতার উপরে নির্ভর করে বলে, শিক্ষাগত যোগ্যতা খুব বেশি জরুরী হিসাবে ধরা হয় না। আপনি যদি পারদর্শী হন, তাহলেই আপনি এই সেক্টরে কাজ করতে পারবেন।

কাজের স্বাধীনতা

Graphics Designer-রা স্বাভাবিকভাবে স্বাধীনচেতা হন। তারা স্বাধীনভাবে কাজ করতে ভালবাসেন। আপনি যদি ইচ্ছা করেন তাহলে আপনি নিজে নিজেই এই ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করতে পারেন। আপনি নিজের পোর্টফোলিও ব্যবহার করে বিভিন্ন ক্লায়েন্টের সাথে যোগাযোগ করে নিজেই কাজ করতে পারেন।

আপনি অনলাইনে অনেক প্লাটফর্ম পাবেন যেখানে আপনি নিজের একাউন্ট ক্রিয়েট করে নিজের কাজগুলো প্রদর্শন করে রাখতে পারেন। আপনার কাজ দেখে যদি কারো ভাল লাগে তাহলে তারাই আপনার সাথে যোগাযোগ করবে তাদের প্রোজেক্টে কাজ করার জন্যে।

অধিক আয়ের সুযোগ

যেহেতু বর্তমান বিশ্ব ভিজুয়্যাল কন্টেন্ট এর দিকে ঝুকে পড়ছে, তাই আপনি চাইলে এখনই শিখে অধিক আয় নিশ্চিত করতে পারেন। আপনি হয়ত জানেন না যে অনেক কোম্পানি আছে যারা শুধুমাত্র লোগো ডিজাইন করার জন্যে লক্ষ্ লক্ষ টাকা ব্যয় করে।

আরো পড়ুনঃফ্রিল্যান্সিং এর জন্য কি রকম পিসি প্রয়োজন? কোন ধরণের পিসি বিল্ড করবেন?

চাকরির সুযোগ

Graphics Designer হিসাবে আপনি দেশি বিদেশি বিভিন্ন কোম্পানিতে কাজ করতে পারবেন। বিদেশি কোম্পানিগুলোতে কাজ করার চেয়ে সব থেকে বেশি ভালো হয় যদি আপনি বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসগুলোতে কাজ করা শুরু করেন।

কারন একবার কাজ করতে থাকলে বিভিন্ন দেশের ক্লায়েন্টদের সাথে ভালো সম্পর্ক তৈরি হবে এবং তাদের মাধ্যমেই বিভিন্ন দেশের কোম্পানির সাথে কাজের সুযোগ পাবেন। অনেক দেশি কোম্পানিও এখন একাডেমিক যোগ্যতার থেকেও দক্ষতার উপরেই বেশি ফোকাস দিচ্ছে। আপনি চাইলে ওইসব কোম্পানিতে কাজ করতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ SEO কি? ‍SEO কিভাবে শিখবো? ‍এসইও কেন গুরুত্বপূর্ণ? SEO কত প্রকার?

প্রতিভা দেখানোর সুযোগ

আপনার যদি প্রতিভা থাকে, তাহলে সেটা দেখানোর ক্ষেত্রে কোনো অসুবিধায় পড়তে হবে না। আপনি যথাযথ মূল্যায়নও পাবেন। আপনার প্রতিভা গুলো চাইলে পোর্টফোলিও আকারে মার্কেটপ্লেসগুলোতে প্রদর্শন করতে পারবেন। সেগুলো দেখে ক্লায়েন্ট আপনাকে খুব সহজেই খুঁজে নিতে পারবেন।

উচ্চ শিক্ষার প্রয়োজন নাই

এই পেশায় আসার জন্য আপনাকে কোনো উচ্চতর ডিগ্রিধারী হওয়া লাগবে না। মার্কেটপ্লেসগুলোতে অনেক মানুষ আছে যারা স্কুলের গন্ডিও ঠিক করে পার করতে পারেন নি। ছাত্র থেকে শুরু করে গৃহিণীরা পর্যন্ত এখন গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজের সাথে সংযুক্ত।

ভবিষ্যৎ সম্ভাবনা

আরও বড় একটি আশার বাণী হচ্ছে এই খাতের ভবিষ্যত সম্ভাবনা অনেক বেশি। বর্তমানে এমন একটি সময় এসে গেছে যেখানে আমরা মার্কেটিং বলতে শুধু মাত্র ডিজিটাল মার্কেটিংকেই বুঝি। একটা সময় এর মাত্রা ও আওতা আরও বাড়বে। নতুন নতুন ডিজিটাল মার্কেটিং এর মেথড বের হবে যেগুলো মুলত ডিজাইনিং এর উপরে নির্ভরশীল হবে। তাই যারা এই সেক্টরে নিজেদের ক্যারিয়ার দাঁড় করানোর কথা ভাবছেন, তারা নিঃসন্দেহে অনেক সুদূরপ্রসারী একটা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

ফ্রিলান্সিং ও আউটসোর্সিং এ গ্রাফিক্স ডিজাইন

ফ্রিলান্সিং ও আউটসোর্সিং খুবই জনপ্রিয় একটি উন্মুক্ত পেশা বর্তমানে। অনেক বেকার যুবকের কর্মসংস্থান হয়েছে এই সেক্টরের মাধ্যমে। আপনি চাইলেই ঘরে বসেই লাখ লাখ টাকা ইনকাম করতে পারবেন বিভিন্ন মার্কেটপ্লেস থেকে। এই ফ্রিলান্সিং এর খুব বড় একটা অংশ জুড়ে রয়েছে গ্রাফিক্স ডিজাইন। ছোট্ট একটি লোগো থেকে শুরু করে টেলিভিশন কমার্শিয়াল তৈরি সহ ডিজিটাল মার্কেটিং এর সকল মার্কেটিং সামগ্রী তৈরির ক্ষেত্রেই রয়েছে এর চাহিদা৷ এজন্য মার্কেটপ্লেসগুলোতে এই সেক্টরের কাজ খুব বেশি পাওয়া যায়।

গ্রাফিক্স ডিজাইন কিভাবে শিখবো?

ক্যারিয়ার হিসাবে Graphics Design নির্ধারণ করার পরে প্রথম যে জিনিসটি সর্ম্পকে মনে প্রশ্ন আসে সেটি হলো গ্রাফিক্স ডিজাইন কিভাবে শিখবো। ইন্টার্নেট দুনিয়ায় হাজার হাজার রিসোর্স পাবেন এই ইনডাসট্রি নিয়ে।

প্রথমত, আপনি চাইলে গুগল থেকে বিভিন্ন রিসোর্স সংগ্রহ করে সেগুলো পড়ে শিখতে পারেন। এরপরেই আসে ইউটিউব। ইউটিউব-এও বিভিন্ন ভিডিও পেয়ে যাবেন গ্রাফিক্স ডিজাইন সম্পর্কিত। এর মধ্যে যেকোনো একটি চ্যানেল অনুসরণ করলেই আপনি শিখতে পারবেন গ্রাফিক্স ডিজাইন।  

এছাড়াও বিভিন্ন ইনস্টিটিউট ও ওয়েবসাইট রয়েছে যারা অনলাইন ভিত্তিক বিভিন্ন কোর্স করিয়ে থাকে। ওইসব কোর্স গুলো করেও শিখতে পারেন গ্রাফিক্স ডিজাইনিং। তবে সবকিছুর প্রথমে আপনার লাগবে একটা কম্পিউটার এবং ইন্টারনেট কানেকশন।

আরো পড়ুনঃ ঘরে বসে শিখুন গ্রাফিক্স ডিজাইন ( এ টু যেড গাইডলাইন)

আরো পড়ুনঃ আপনার গ্রাফিক্স ডিজাইন গুলো কোথায় বিক্রি করবেন?

ঘরে বসে গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখার উপায়

কোভিড-১৯ এর কারনে বর্তমানে আমরা অনেকেই ঘরে বসে আছি। আমরা কিন্তু চাইলে ঘরে বসেই নিজেদের সময়গুলোকে কাজে লাগিয়ে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখে ফেলতে পারি। বর্তমানে টি শার্ট ডিজাইনের কাজ করেও অনেকে বেশ ভালো আয় করছে।

গ্রাফিক্স ডিজাইন কেন শিখবো ?

আমাদের চারপাশে অনেক কিছুই আমাদের নজর কাড়ে, মনে প্রশান্তি আনে। কলেমের খোঁচায় যেমন লেখনী ফুটে উঠে, তেমনি তুলির ছোঁয়ায় ফুটে ওঠে রঙের খেলা, মন ভোলানো ডিজাইন। যুগের পরিবর্তনে সবকিছুই এখন আধুনিক হয়েছে, সেই সাথে এই সেক্টরের চাহিদাও বাড়ছে দিন দিন। অন্যান্য সকল পেশা থেকে এই পেশাটি ঝামেলা মুক্ত এবং বেশ নিরাপদ। কারণ, বর্তমান বাজার চাহিদা অনুযায়ী ডিজাইনারের কাজের অভাব খুব কমই হয়।

১) ঠিক এই মুহূর্তে বাংলাদেশের স্বপ্নের ও সবচেয়ে দামী ক্যারিয়ারের নাম গ্রাফিক্স ডিজাইন। এটি অতি আকর্ষণীয় একটি পেশা।
২) বিভিন্ন ধরণের ইন্টারঅ্যাক্টিভ মিডিয়া, কর্পোরেট রিপোর্টস, জার্নাল, মার্কেটিং, ব্রোশিওর, সংবাদপত্র এবং বিভিন্ন আইটি প্রতিষ্ঠান গুলোতে ডিজাইনারদের চাহিদা, মূল্যায়ন ও বাজারদর এখন প্রায় আকাশ ছোঁয়া।
৪) এছাড়াও ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস গুলোতেও ডিজাইনিং এ ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। যেমন, Fiverr.com, 99desgin.com, elance.com, freelancer.com, guru.com, Upwork.com ইত্যাদি সাইটগুলোতে প্রতিদিন শত শত কোম্পানি বা ক্লায়েন্ট গ্রাফিক্সের কাজ এর জন্য দক্ষ ডিজাইনারের সন্ধান করছে এবং এইসব দক্ষ গ্রাফিক্স ডিজাইনারদেরকে অনেক ভাল স্যালারি দিয়ে হায়ার করে নিচ্ছে।

গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে কত দিন লাগে?

আসলে সত্যি কথা বলতে আপনার এই কাজ শিখতে কতো দিন সময় লাগবে সেটি একমাত্র আপনার পক্ষেই বলা সম্ভব। আপনার যদি আগ্রহ থাকে এবং আপনি যদি আপনার আগ্রহকে সম্মান করে মোটামুটি সময় ব্যয় করতে পারেন শেখার জন্য, তবে হতে পারে আপনি এক মাসের মধ্যেই অনেক দূর শিখে ফেলতে পারবেন।

কিন্তু আপনি যদি শুধুমাত্র অর্থ উপার্জনের জন্য শিখে থাকেন, আপনার যদি কোনো রকম আগ্রহ না থাকে এই ব্যাপারে, তাহলে হয়ত আপনার শিখতে অনেকটা সময়ের প্রয়োজন পড়বে।

কি কি কাজে গ্রাফিক্স ডিজাইন ব্যবহার করা হয়?

সত্যি কথা বলতে বর্তমানে প্রত্যেকটি জায়গায় এই পেশার চাহিদা রয়েছে। আপনি রাস্তায় বের হলে বিলবোর্ড থেকে শুরু করে দেওয়ালের পোস্টার পর্যন্ত সব জায়গাতেই গ্রাফিক্স ডিজাইনের ছোঁয়া আছে। তাই আপনি যদি সত্যিকার অর্থে একজন ভালো মানের গ্রাফিক্স ডিজাইনার হতে পারেন তাহলে অবশ্যই আপনি আপনার এই স্কিলটিকে ব্যবহার করে বেশ ভালো পরিমাণে অর্থ আয় করতে পারবেন।

উপসংহার

এই ছিল মুলত গ্রাফিক্স ডিজাইন কি এবং কিভাবে শিখবেন এই নিয়েন বিষদ আলোচনা। আশা করি সব কিছু খুব সুন্দর ভাবে বুঝেছেন। এখন সময় এসেছে কাজে লেগে পড়ার। যেকোনো একটা পন্থা বেছে নিয়ে উপযুক্ত মনে হলে শিখে ফেলুন এবং জব মার্কেটে ঢুকে পড়ুন। আর কোনো বিষয়ে যদি জানতে চান, তাহলে সেটি কমেন্ট বক্সে জানাতে ভুলবেন না।

error: দুঃখিত! কন্টেন্ট কপি করা যাবেনা! প্রয়োজনে শেয়ার অপশন থেকে শেয়ার করুন